Breaking News

অ্যাম্বুলে;ন্সের অ;ভাবে ১২ দিনের ন;বজা;তক রে;খে মায়ে;র মৃ;ত্যু

বি;য়ে হয়েছে ২০০৯ সালে। দীর্ঘ ১২ বছর স্বপ্ন ছিলো ‘মা’ হবেন তিনি। ই;চ্ছে থাকলেও হচ্ছিল না তা। দেশে-বিদেশে চলে নানা চি;কিৎসা, তৎপরতা হন এ;কের পর এক পদক্ষেপ নি;য়ে। প্রকৃতি বার;বার হ;তাশ করে তাকে।

তবে গেল মা;সের ২১ তারিখ হাসপাতালে সি;জার করে ফুটফুটে এক মে;য়ে সন্তান জন্মদেন নগরীর মে;হেরচন্ডীর ফাতিমা শিপলা নামের এক নারী। আকি;কা দিয়ে মেয়ের নাম রাখেন ইর;পিজা খান মানহা। স্বামী সাইফুল ইসলাম ও শিপলা;র সুখের সং;সার পূর্ণতা পায়।

কিন্তু মাত্র ৬ দিনের মাথায় অ;ঘ;টনের শুরু। হাসপাতালে সিজারের ৪ দিনের মাথায় আসেন বাড়িতে। দুই দিন পর প্রচ;ণ্ড কাঁ;পুনি দিয়ে জ্বর আসে শিপ;লার। এতে গুরু;ত্বর অসু;স্থ হয়ে পড়েন তিনি।

চিকিৎসকদের পরা;মর্শে নিক;টস্থ আর;বার হেলথ সেন্টা;রে শি;পলার করো;না পরীক্ষা করা হয়। টেস্টের রেজাল্ট আসে পজি;টিভ। এরপর ধীরে ধীরে আ;রেও অ;সুস্থ হয়ে পড়েন শি;পলা। চিকিৎ;সকের পরামর্শে রা;জশাহী সিটি কপো;রেশানের ২৬নং ওয়ার্ড থেকে অক্সিজেন সা;পোর্ট নেন।

পরে আবারেও অক্সি;জেনের দরকার হলে নেন স্থা;নীয় চন্দ্রীমা থানা থেকে। এরই মধ্য বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) রাতে মা;রাত্মক শ্বা;সকষ্টে পড়েন শিপলা। রা;তভর বৃ;ষ্টি সাথে বাইরে লকডা;উন চলায় পথে নেই কোন যানবাহন, দিক-বিদিক ছু;টেছিলেন তার স্বামী সাইফুল ইসলাম।

সে রাতে অ্যাম্বু;লেন্স সহায়তা চেয়ে স্বা;মী সাইফুল ইসলাম ফোন করেন রাজশাহী বিশ্ববি;দ্যালয় ও ফায়ার সার্ভি;সে। কিন্তু শ্বা;সকষ্ট ও করো;নার খবর শুনে সহ;যোগীতা দিতে অপা;রগতা প্রকাশ করেন তারা।

পরে রাজশাহী মেডি;কেল কলেজ হাসপাতালেও ফোন করেন তিনি কিন্তু সেখান থেকেও পাওয়া যায়নি কোন সা;ড়া। পরে বেসরকা;রি দুটি হাসপা;লে অ্যা;ম্বুলেন্স সহায়তা চাইলে তারাও অপা;রগতা জা;নায়। প্রায় ৬ ঘণ্টা প্রা;ণপণ চেষ্টা চালিয়েও পাননি একটি অ;টোরিকশা।

এমন উদ্বে;গ উ;ৎক;ণ্ঠায় রাত কাটি;য়ে শিপলার স্বামী বৃহস্পতিবার সকাল পৌনে ৭টার দিকে রাজ;শাহী মডেল হাসপাতালের একটি অ্যা;ম্বুলেন্স শিপলাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। সকাল ৭ টার দিকে রাজ;শাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাকে।হাসপা;তালের ওয়ার্ডে তখন স্বামী সাইফুল ইসলা;মের হা;তের ওপর মাথা;দিয়ে নি;থর পড়ে থাকেন তি;নি। দেয়া হয় হাই;ফ্লো অক্সি;জেন। কিন্তু এর কি;ছুক্ষণ পরই স্বা;মীর হাতের ওপারই মৃ;ত্যুর কো;লে ঢলে পড়ে স;দ্য মা হ;ওয়া শিপ;লা।

মা’য়ের স্পর্শ, স্নে;হ বুঝে ওঠার আগেই এতি;ম হন মাত্র ১১ দিনের নবজা;তক শি;শু মান;হা। মুহূর্তে দীর্ঘদিন পর পূ;র্ণতা পাওয়া সংসারে স্বজনদের মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়ে। পরিবারের সকলের স্নেহ আদ;রের শি;পলার মৃত্যু;তে শো;কে পাথর হয়ে পড়েছে পরি;বারের সদস্যরা। মা হা;রানো শি;শুটির কা;ন্না থামাতে পারছেন না কেউই।

শুক্র;বার শিপলার স্বা;মী বলেন, শিশু;টির যত্নে তার বড় ভা;বি ও ভা;য়ের মে;য়েরা দায়িত্ব নিয়ে লালন পালন করছেন। মা হিসেবে আমার ভাবিকেই চি;নবে আমার মেয়ে। স্ত্রী;র মা হবার স্ব;প্নের কথা বলতে গিয়ে গলা ভা;রি হয়ে আসে তার। দোয়া চান ক;রোনার থাবা;য় হারিয়ে ফেলা স্ত্রী ও নবাগত স;ন্তানের জন্য। আস;ফোস করেন মাত্র ১০ কি;লোমিটার পথের জন্য স্ত্রী;র জন্য কোন অ্যাম্বু;লেন্সের ব্যব;স্থা করতে না পারায়।

About admin

Check Also

চকলেট ভেবে ইঁদুর মা;রার ওষুধ খেল দুই বোন, প্রা;ণ গেল ছোট বোনের

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার না;সিরনগরে চকলেট ভেবে ইঁদুর মা;রার ওষুধ খেয়ে মারিয়া নামে দুই বছর বয়সী এক শিশুর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *