বৃদ্ধ বাবার ঘরের টিন খুলে নিল ছেলের পাওনাদাররা

আমারা বড় ছেলে আবুল কাশেম আলাদা থাকে। তার কাছে স্থানীয় ইউনুস, আবুল কালাম ও রবিন নামে তিন যুবক টাকা পাবে বলে দা;বি করে আসছে। কিন্তু কিসের টাকা বা কত টাকা পাবে তা আ;মি জানি না। আর এ টাকার জন্য প্রায়ই গাল;মন্দ ও মার;ধরের হুমকি শুনতে হয়েছে আমাকে। গত শুক্র;বার আমার ঘরের টিনের চাল খুলে নিয়ে যায় ওই তিন যুবক।

রোববার দুপুরে কান্না;জড়িত কণ্ঠে এভাবেই কথাগুলো বলছিলেন আবদুর রহিম নামে এক বৃদ্ধ রি;কশাচালক। তিনি লক্ষ্মী;পুর পৌর শহরের দক্ষিণ মজুপুর গ্রামের বা;সিন্দা। তার দুই ছেলে, এক মেয়ে। অন্যদিকে, অভিযুক্তরা হলেন- একই এলাকার সিরাজের ছেলে ইউনুস, আলীর ছেলে আবুল কালাম ও খোক;নের ছেলে রবিন।

আবদুর রহিম বলেন, ছেলের অপরাধের জন্য বাবাকে শা;স্তি ভোগ করতে হবে, এটা কেমন বি;চার। আমি রিকশা চালিয়ে কোনোরকমে স্ত্রী, স্কুল পড়ুয়া দুই নাতনী ও প্রতিব;ন্ধী ছোট ছেলেকে নিয়ে থাকি। কার সঙ্গে আমার ছেলের ব্যবসা আ;ছে তাও জানা নেই। তাকে না পেয়ে টাকা পাওয়ার দাবি করে তারা বাড়িতে হামলা করে আমার ঘরের টি;নের চাল খুলে নিয়ে যায়। এখন চাল;বিহীন (ছাউনি ছাড়া) ঘরে গত তিনদিন মানবেতর জীব;নযাপন করছি। রাতে কুয়াশায় ভিজ;তে হচ্ছে আবার উপরে ছাউনি না থাকায় দিনে রৌ;দে কষ্ট পেতে হচ্ছে।

এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত থানায় অভিযোগ করেননি ওই রিকশাচালক। কারণ হিসেবে তিনি জানিয়েছেন, মাম;লা করতে টাকা লাগে, সে টাকা তো আমার নাই। ঘটনার পর থেকেই আমি মানসিক;ভাবে ভেঙে প;ড়েছি। গত তিনদিন রিকশা নিয়ে বের হতে পারিনি। এছাড়া অভিযুক্ত;রাও প্রভাবশা;লী।

স্থানীয় ও প্রতিবেশীরা জানান, রিকশাচালক আবদুর রহিমের ছেলে কাশেম চট্ট;গ্রামে মাছের ব্যবসা করতেন। ব্যবসার জন্য ইউনুস, কালা ও রবিনের কাছ থেকে টাকা ধার নেন কা;শেম। ব্যবসায় লোক;সান হওয়ায় কাশেম গা ঢাকা দেয়। কিন্তু পাওনা টাকা উদ্ধা;রের জন্য আইনের আশ্রয় না নিয়ে নিজে;রাই কাশেমের বাড়িঘরে হামলা চালায়। এক পর্যায়ে বৃদ্ধ রহি;মের বসতঘরের টিন খুলে ফেলে তারা। এ ঘটনার সুষ্ঠু বি;চার চান তারা।

স্থানীয় চা দোকানি আবুল হাসেম বলেন, এলাকায় ব্য;বসার কথা বলে কাশেম কয়েকজনের কাছ থেকে টা;কা নিয়েছে। কিন্তু টাকা না দেওয়ায় কাশেমের ঘরে কয়েক;দিন আগে তালাও দেয় পাওনাদাররা। তাতেও টাকা না দেওয়ায়, কাশেম ও তার বাবার ব;সতঘরের টিনের চাল খুলে ফেলে তারা। আর এসব করা হয়েছে সালি;শদারদের সি;দ্ধান্তে।

লক্ষ্মীপুর সদর থানার ওসি মো. জসিন উদ্দিন বলেন, ভুক্ত;ভোগীর পক্ষ থেকে এখনো কোনো লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি। তবে ঘটনা শোনার পর ঘট;নাস্থলে পুলি;শ পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.