ভাটায় ভে;ঙে গেল সেই মসজিদ, ঠাঁয় বসে ইমাম

সাতক্ষীরার আশাশুনি উপ;জেলার প্রতাপনগর গ্রামের সেই হাওলাদার বাড়ি বায়তুন নাজাত জামে মস;জিদটি ভাটায় ভেঙে গেছে। শুক্রবার (৮ অক্টোবর) সকালে মসজিদটি খালপটুয়া নদীর ভাটা;র টানে ভে;ঙে পড়ে।

এর আগে, ১০ আগস্ট থেকে উপকূলীয় রিং বাঁধ ভেঙে মসজিদটিসহ লোকালয়ে পানি প্র;বেশ শুরু করে। এরপর থেকেই ঝুঁ;কিপূর্ণ ছিল মসজিদটি।

প্লাবিত এলাকায় পানি সাঁতরে মস;জিদটিতে আজান ও নামাজ আদায় করতেন মসজিদের ইমাম ও খতিব হাফজ মঈনুর রহমান। এমন একটি ভিডিও সা;মাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হলে আ;লোচনায় আসে মসজিদটি।

স্থানীয় মুসল্লিরা জানান, পা;র্শ্ববর্তী বন্যতলা এলাকায় খালপটুয়া নদীর বেড়ি;বাঁধ ভেঙে বিস্তির্ণ এলাকা প্লাবিত হয়। লোকালয়ের মধ্য দিয়ে নদীর জোয়ার ভাটা শুরু হয়। ভাঙ;নের কবলে পড়ে অসংখ্য ঘর বাড়ি ভেঙে পানিতে বিলীন হয়ে যায়। তবে, গত দুই মাস যাবত মুল ভূ;খন্ড থেকে মস;জিদটি আলাদা হয়ে যাওয়ায় সেখানে নামাজ আদায় করতে পারেননি মুসল্লিরা। আজ ভাটার টানে এক;বারেই ভে;ঙে পড়ে মসজিদটি।

প্রতাপনগর হাওলাদার বাড়ি বা;য়তুন নাজাত জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব হাফেজ মঈনুর রহমান বলেন, ফজ;রের নামাজের পর মসজিদটি ভেঙে পড়েছে। অবকাঠামো একেবারই বিলীন হয়ে গেছে। ধ্বং;সস্তুপ হয়ে পড়ে র;য়েছে। সেই থেকেই আমি এখানে বসে আছি, কি কিরবো?

ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জাকির হোসেন বলেন, ঘূ;র্ণিঝড় ইয়াসের সময় বন্যতলা বেড়িবাঁধটি ভেঙে যায়। এরপর থেকেই মানুষ পানিতে ভাস;ছে। আজ জুমার দিন মসজিদটিও ভেঙে নদীতে চলে গেল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.