ভিক্ষা করতে গিয়ে প্রেম, বিয়ে না করায় নাতিকেই অপহরণ করল প্রেমিকা

ভিক্ষা করে জীবন চলে ৫২ বছর বয়সী জিয়ারুল ইসলামের। তাকে বিভিন্ন এলাকায় ঘুরতে হয়। এ সুবাদে ২৬ বছর বয়সী এক গৃহবধূর সঙ্গে পরকীয়ার সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন তিনি। প্রেমিকাকে বিয়ের আশ্বাস দেন। কিন্তু বিয়ে না করায় জিয়ারুলের তিন বছর বয়সী নাতিকে অপহরণ করেন প্রেমি;কা।

ঘটনাটি দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলায়। জিয়ারুল ঘোড়াঘাট পৌর এলাকার হঠাৎপাড়া গ্রামের বা;সিন্দা। গৃহবধূ রিপা বেগমের বাড়ি গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার গোবিন্দপুর-কালি;তলা গ্রামে।

দীর্ঘদিন ধরে রিপাকে বিয়ের আশ্বাস দেন জিয়ারুল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত বিয়ে না করায় কৌশলে ১৫ নভেম্বর জিয়ারুলের বাড়িতে লালিত-পালিত হওয়া নাতি জিম বাবুকে অপহরণ করেন প্রেমিকা রিপা।

অপহরণ হওয়া জিমের বাবা-মা নিম্নবিত্ত হওয়ায় দীর্ঘদিন ধরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শহরে রিকশা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন। আর জিম থাকে ঘোড়াঘাটে না;নাবাড়িতে।

নিখোঁজ হওয়ার পর জিমকে বিভিন্ন স্থানে খুঁজেও কোনো সন্ধা;ন মেলেনি। পরে গতকাল বুধবার রাতে কয়েকজনের নাম উল্লেখ করে ঘোড়াঘাট থানায় জিডি করেন শিশুটির বাবা জহুরুল ইসলাম।

জিডির সূত্র ধরে তথ্য;প্রযুক্তির সহায়তায় শিশু অপহরণের সঙ্গে জড়িত এক নারীর অবস্থান শনাক্ত করে ঘোড়াঘাট থানা পু;লিশ। পরে বুধবার রাত সাড়ে ১১টায় গাইবান্ধার গোবি;ন্দগঞ্জ উপজেলার চড়কতলা বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে রিপাকে গ্রেফ;তার করে পুলিশ।

ঘোড়াঘাট থানার ওসি আবু হাসান কবির বলেন, অপহর;ণকারী নারী ও ভুক্তভোগীর নানা মা;দকাসক্ত। একসঙ্গে মাদক সেবনের সু;বাদে তাদের দুজনের ভালো সম্পর্ক গড়ে উ;ঠেছিল। বিয়ের প্রতি;শ্রুতি দিয়েও করেননি ভুক্তভোগীর নানা জিয়ারুল ইসলাম। এজন্যই শিশুটিকে অপহরণ করেন রিপা। তাদের মাদক সেবনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে ভু;ক্তভোগীর আপন নানি আমেনা বেগম। রিপার বিরু;দ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আ;ইনে মা;মলা করে বৃহ;স্পতিবার দুপুরে দিনাজপু;রের বি;জ্ঞ আদালতে পাঠানো হয়। বিচারক তার জামিন না ম;ঞ্জুর করে কারাগারে পাঠান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *