হেঁটে হজ পালনকারী দিনাজপুরের সেই ১১৫ বছরের হাজি মো. মহিউদ্দীন মারা গেছেন

রোববার দিবা;গত রাত সাড়ে ১২টার দিকে সদর উপজেলার রামসাগর খসরুর মোড়ে মেয়ের বাড়িতে শে;ষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃ;ত্যুকালে তিনি স্ত্রী, চার মেয়ে, দুই ছেলে, নাতি-নাতনিসহ অসংখ্য গু;ণগ্রাহী রেখে গেছেন।

সোমবার বাদ জোহর রাম;সাগর জাতীয় উদ্যানের বায়তুল আকসা জামে মস;জিদের সামনে তার জা;নাজা হয়। এর পর রামসাগর দীঘিপাড়ায় পারিবারিক গো;রস্তানে তাকে দাফ;ন করা হবে।

দিনাজপুর সদর উপজেলার ৯ নম্বর আশস্করপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়া;রম্যান জিয়াউর রহমান জিয়া হাজি মহিউদ্দীনের মৃ;ত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

হাজি মহিউদ্দীন দিনা;জপুর সদর উপজেলার রামসাগর দীঘিপাড়া গ্রামের মৃ;ত ইজার পণ্ডিত ও মমিরন নেছার ছেলে। তিনি জাতীয় উদ্যানের বা;য়তুল আকসা জামে মস;জিদের সাবেক ইমাম।

১৯০৬ সালের ১০ আগস্ট জন্মগ্রহণ করেন মো. মহিউদ্দীন। ১৯৬৮ সালে হজ করার উ;দ্দেশ্যে পায়ে হেঁটে দি;নাজপুর থেকে রওনা দেন তিনি। পায়ে হেঁটে হ;জ করতে যেতে-আসতে তার সময় লে;গেছিল ১৮ মাস।

এ ১৮ মাসে তিনি পাড়ি দেন কয়েক হা;জার কিলোমিটার পথ। এ সময়ে তিনি সফ;র করেন ৩০ দেশ। যে দেশগুলো তিনি সফর করেছেন মৃ;ত্যুর আগ পর্যন্ত, মু;খস্ত বলতে পারতেন সেসব দেশের নাম। ওই সময়ে হ;জে যেতে পাসপোর্ট ও ভিসা করতে তার খরচ হয় ১২০০ টাকা।

তিনি স্ত্রী, চার মেয়ে, দুই ছেলে, নাতি-না;তনিসহ অসংখ্য গুণ;গ্রাহী রেখে গেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *